“আমি ভালোবাসলে তুমি লোড নিতে পারবা না। তাই আমাকে এত চেতাইওনা”
  -জনৈক মানুষ

একজন চলচ্চিত্র নির্মাতার জন্য টিভি হতে পারে শুধু মাত্র এক্সপেরিমেন্ট বক্স। এর বেশী ভাবলেই আটকে যেতে হবে।।

image

আমি বুঝে গেছি, তুমি আর আমার নও
আমি জেনে গেছি, তুমি আর আমার নেই।
হয়ে গেছ, তার।

 
ভেরি গুড।
আবার সেই আগের মিথ্যে ঝেরে দিলে,
মিথে্য বলে চার রাত কাটিয়ে দিলে, হয়ত পাশা পাশি দুইটা আলাদা বিছনায়। সেই সুন্দরবনের মত পবিত্র সম্পর্ক, ওরা তোমাদের ধরে বিয়ে দিতে চেয়েছিল রাত তিনটায়। দেশি বিদেশি খবর হয়েছিলে তোমরা। তোমাদের পবিত্র সম্পর্ক চলাফেরার জন্যে। গুড।
তবু মেনে নিলাম। রাত বারটায় ফু ওয়াং বাড়ে যায়, নিকেতন যাও। দেড়টা পযর্ন্ত গাড়িতে বসে দুঃখ শেয়ার কর। বল, আমি তোমাকে বেঁধে ধরে রাখি, দারোগার মত। কাঁদো। বল আমি ভিষন ছোট লোক, সন্দেহবাতিক গ্রস্ত পাগল। তোমার আগেই আমার চিকিৎসা করানো দরকার।

হায়,
তুমি সেই ছেলেটার সাথে, তোমারই সাবেকের দেশে ঘুরে এলে, যাকে নিয়ে তোমাকে নিয়ে কথা বলার দু চারজন আছে, অন্যরাও অল্প দিনের জন্য বিশ্বেস করতে শুরু করেছিল। আমাকে দাড় করালে সাইনবোর্ড। ওকেই আমি বিয়ে করবো।
আর চলে গেলে সেই ছেলেটার সাথে প্লেনে, সব জানালার ছবি, ভিতরের ছবি নাই।

কেন?

তবে ধন্যবাদ তোমাকে,
নিজ থেকেই এই সাহসী মিথ্যেটা বলতে পারার জন্য, সেই আগের মহৎ মেয়েটার মত তার মা খালাদের নাম বেঁচে। মহৎ কাজের জন্য একটু মিথ্যে বলাই যায়, নাকি বলো ?

এসব কথা আমি কখনো প্রচার করবো না। কাউকে না। তোমাকেও না। তোমাকে বল্লেই তুমি আবার সুইসাইড করার হুমকি দিবা। দেয়েলে মাথা ঠুকবা। তোমার জামাইয়ের রেখে যাওয়া লম্বা বাক্সটাতে দাড়িয়ে আমারই কিনে দেয়া সিলিং ফ্যাটাতে ঝুলে যাবার চেষ্টা করবা।

আমি কিংবা তোমার ভাই ও তার বন্ধুরা আবার একটা যুদ্ধ করব। অমানুষিক পরিশ্রম করে হয়তো বাঁচাতে পারবো। হয়তো না।

হয়তো আমাকে ঠাস ঠাস অনেক গুলো চর থাপ্পড়, ডাই করার মোটা বেতটা দিয়ে ইচ্ছে মত পিটিয়ে, লাথ্থি দিয়ে যখন ক্লান্ত, থখন ফোঁফাতে ফোঁফাতে জানতে চাইবা,

‘বল
..তুই ভুল করছিস।
ঐ ছেলেটার সাথে ঐ খানে গিয়ে আমি কোন ভুল করি নাই। এবং আমি আরো অনেককের সাথে অনেক অনেক দেশে ঘুরে বেড়াব, দিল্লির ………. এর কাছে যাব। ওমুক ভাইয়ার সাথে এখানে যাব, তুই কিছু ভাবতে পারবি না।

বল এইসব নিয়ে, এই যে, আমি কোথায় গেলাম, কার সাথে গেলাম, কত রাতে ফিরলাম, এগুলা নিয়ে কোন কথা বলবিনা বল? কোন ধরনের সন্দেহ করবি না বল???

আমিও তখন সব মেনে নিয়ে আরো বেশি ভিতু হতে হতে ভেড়া হয়ে গিয়ে সব মেনে নিতে নিতে ঘুম পাড়াতে পাড়াতে ভাবতে থাকবো,
থেংকস্ গড, জীবনের আরেকটা কঠিন তম দীর্ঘতম রাত পার করে সকাল দেখবো

এইবার কত তম বার হবে বলোতো?

তুমিই হিসেবটা সবচেয়ে ভাল জান। চৌদ্দ এর ডিসেম্বরের পযর্ন্ত জান্তো সেই রংপুরী। তারপর থেকে ক…বার ভেবে বলোতো। টোটাল কবার হল? আরিফের জন্য একবা, সুমনের জন্য দুইবার, নয়নের হাতে দুইবার, ওচলে যাওয়ার পর একবার, বিরাট বড় চমক। একজন মানুষ এমন মনে প্রানে ধ্যানে শক্তি প্রয়োগ করে সুইসাইড করতে চায়? তিনজন সুস্থ সবল মানুষ ধরে রাখতে পারছি না। হসপিটালে নিয়ে ঘুম পারিয়ে নিস্তেজ করে রাখা হল। মেডিকেলের টপ সিনসিয়া রা চিকিৎস্যা দিছেন।

কয়টা দিন ভাবলাম। আমরা তো আসলে কঠিন একটা ভুল করে ফেলেছি। তুমি তো আসলে আমাকে নিয়ে নিশ্চিত না। কন্ফিউজড। এখন মনে হচ্ছে নয়নের কাছে থাকাই ভাল হবে।

কিন্তু হায়,
তখন সব শেষ। ডিভোর্সের পেপার চলে এসেছে।

তোমার তখন মনে হল, ভুল হয়েগেছে। অথচ এর আগের তিন চারটা মাস আমার হাত ধরে ক্যাম্পাস ময় ঘুড়ার সময়, রোমান্টিক লুক দিয়ে চারুকলায় হেঁটে বেড়ানোর সময়, আমি একটু আনইজি ফিল করলেই, উঁচু গলায় বলেছিলা, আপনি এত ভিতু কেন?
যদি বলি, সবাই দেখছে, বুঝছে, তোমার স্বামী কিছু একটা স্বীদ্ধান্ত নিতে পারে। তখন কি করবা?

তুমি কি বল্লা? বল্লা, যা হয় দেখা যাবে।

নিজের সাথে যুদ্ধ করতে লাগলাম। বন্ধুরা প্রথস থেকেই বিরোধী। এত সেনসিটিভ একটা বিষয়, কেউ শুনতে চাইলো না।

তোমাকে বুঝালাম। এখনো কিছুই নষ্ট হয় নাই। আমি ফিল্ডে না থাকলে সব ঠিক হয়ে যাবে। তুমি তখন তার একহাজার একশোটা দোষ দেখাতে লাগলে। তবু একদিন তোমাকে পাঠালাম। তুমি ফিরেও গেলে। তোমাদের কঠিন লেভেলের প্রেমও হতে থাকলো।

দুইদিন পর ফোন দিলা, কি করেন?

বল্লাম গাঁজা খাই। তুমি বনানী থেকে হেঁটে চলে এলে বসুন্ধরা য়। কাঁদলে, তুমি আমাকে ছাড়া বাঁচতে পারবো না, কিংবা উল্টা করে বল্লে, আমার প্রতি তোমার অনেক মায়া। মা মরা এই অভিমানি ছেলেটার একটা মা দরকার। নইলে আমি ববিড়ি সিগারেট মদ গাঁজা খেয়ে মরে যাব। তুমি আমাকে ছেড়ে কোথাও যাবে না। নয়ন থাকবে নয়নের জায়গায়, আমি থাকবো ওর সন্তানের মত করে।

সেই দিনের এই জিদটাই তোমার জীবন, আমার জীবন, নয়নের জীবন বদলে দেয়া জন্য দায়ী। আমার সাথে দেখা শেষ হবার আগেই নয়ন সেখানে। এবং এখানে হেঁটে আসার কারণ সে সন্দেহ করল। বুঝতে পারল, তুমি আসলে কাউকে ছাড়তে চাও না।

আরো বেশি ডেস্পারেট হয়ে উঠলা। ওর সাথে প্রেম শেষ করেই আমার সাথে। প্রতিযোগিতার মত। ওর পক্ষে আর টলারেট করা সম্ভব হল না। সড়ে যেতে চাইলো। কিন্তু সাত কছর কাপল থেকে ওর আর বুঝবার দেড়ি নাই যে তোমাকে ছাড়া, ছেড়ে আসা কঠিনতম কাজ।

 

 

              সেতো মেলা দিন হয়ে গেল, বড় কিছুর সাথে জড়ালাম। মেলা দিন হল কিছুই হচ্ছে না বলবার মত। অবশেষে সিদ্ধান্ত নিলাম। প্রোডাকশন হাউজ করলাম বন্ধুদের নিয়ে। সেই পুরানো বন্ধুরাই। সাথে দু একজন নতুন মুখ। সেই পুরানো ফিলিংসতো থাকে না। নামটাও তাই নতুন। সিনেমা বাড়ি প্রোডাকশন্স। ঘটা করে নামার মুরুদ নাই, তাই আস্তে ধিরে একজন দুজন করে জানতো। এখন থেকে অনলাইন অফ-লাইন দুই জায়গায় সচল হব। কিছু ফর্মালিটি শেষে সবাইকে জানাবো। আপাতত ফেসবুকে পেজ দিয়ে শুরু………

                                         cinemabari-logo(nt)_final

                                 

                                 www.facebook.com/cinemabari

Colors of shadow _short film_by_farid mazumder_ promo

Posted: 22nd February 2012 by babu in Own
Tags: ,

I am thinking for a site , not an unique idea may be. But necessary in Our country. This will be a community club of directors. Every director, cinema maker, tv maker of even short film maker. We will share our hope, problems etc. young and old it never highlight. We will discuses about our new script or new thought. We will gather like a club. So, I prefer Makersclub.org And it should be a non profitable. Any one wants to support me. Shout UP………

FREELANCE WRITING CAREER

Posted: 7th December 2010 by babu in দিন লিপি

FREELANCE WRITING CAREER : How to Define Your Writing Services, Your Market, Your Business — and most importantly — Your Future! by Brian Scott

A decade ago I listened to a famous writer speak about how to succeed as a freelance writer. Some of the things he said lasted with me. He said, “The single biggest mistake writers make is they give up too soon…You’ve got to pick your niche. You’ve got to focus. Most of all, you’ve got to hang in there.”
His statement sums up why many new freelance writers give up too soon: they don’t focus clearly on what they want. Writers who neglect to create a concrete, viable plan, find themselves being led to failure by an abstract “to-do-list” — a “to-do-list” that lacks power and authority to lead them triumphantly to their destinations.

Read the rest of this entry »

 

 

     আমাদের প্রথম প্রকাশ।

   shadhuShonga_ctg_fineartsbd_com (5)_resize copy shadhuShonga_ctg_fineartsbd_com (15)_resize copy shadhuShonga_ctg_fineartsbd_com (8)_resize copy


আমি তো সেই কবে বদলে গিয়েছি, বদলেছে সব দিন। নক্ষত্ররাও বদলে গেছে আকাশে। বদলায়না শুধু তোমার চাহনি, আর শরীর ভর্তি অহংকার। তুমিই জিতলে-সব সময়ের মত।

 

Abdel Mannan the eminent Lalon research Scholar and vocalist has presented some rare wretchedness music of Faqir Lalon Shah on 15th July at Chittagong Theatre Institute. It’s the first time that any research Scholar exposes Shaijee Lalon’s lyrics according to His real asceticism.

khamok trrop (9)

It was totally exceptional event where the harmony of Ektara and Spanish Guitar has concerted with touchy ode.

On the enlighten stage young Poet and translator Seema Nusrat Amin has recited in English simultaneously.

khamok trrop

Editor of the www. newsbna.com M. Mizanur Rahman has delivered his goodwill speech in early starting.

 

  • credits:
  • instruments by:- alamgir kabir, Tinku Shel, Gonshai pahlavi, Susanta kar & babul dey
  • another’s :- bizu somoy, zamini kobial, farid mazumder, monirul monir, kamol rodra
  • khamok trrop (1)

thinking for a new v-card

Posted: 23rd July 2010 by babu in দিন লিপি

mydigiart11

 

please comments to me.